মঙ্গলবার   ২০ অক্টোবর ২০২০   কার্তিক ৫ ১৪২৭   ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

প্রবাস খবর
সর্বশেষ:
আপনি কি আপনার প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে লিখতে চান? লেখা [email protected] এ পাঠাতে পারেন।
৬৯

প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য আতঙ্কের নাম দক্ষিণ আফ্রিকা

প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০২০  

নিরাপত্তাহীনতায় দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশিরা।

নিরাপত্তাহীনতায় দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশিরা।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য মৃত্যুপুরী খ্যাত দক্ষিণ আফ্রিকায় কৃষ্ণাঙ্গদের পাশাপাশি এ দেশটিতে অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশিদের একটি অংশ। দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশিরা প্রতিনিয়ত কৃষ্ণাঙ্গ চোর-ডাকাতের হামলার আতঙ্কে দিনাতিপাত করলেও এরই মাঝে বাংলাদেশিদের জন্য নতুন আতঙ্ক বিরাজ করছে।

পাকিস্তানি নাগরিকদের সঙ্গে কিছু বাংলাদেশি অপহরণসহ নানা অপরাধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে। দেশটিতে ২৬ আগস্ট থেকে শুরু করে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত অপহরণ হয়েছে ৫ জন বাংলাদেশি নাগরিক; যাদের এখনও পর্যন্ত কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

এছাড়া চলতি সপ্তাহে কেপটাউনের ক্লেমন্ট টাউন থেকে অপহরণকারীদের হাত থেকে শাহাদাত হোসেন নামে একজন বাংলাদেশি নাগরিক বেঁচে এলেও অপহরণকারীর ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এছাড়া ৯ অক্টোবর কেপটাউনে আবদুল করিম নামে আরও একজন বাংলাদেশি নাগরিক নিজ দোকান থেকে অপহৃত হয়েছেন। এসব অপহরণের সঙ্গে বাংলাদেশিরা জড়িত থাকলেও অপরাধীদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ না থাকায় পুলিশ অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে পারছে না।

এছাড়া কেউ অপহরণের শিকার হওয়ার পর ব্যক্তিগতভাবে অপরাধীদের সঙ্গে রফাদফা করায় অনেকাংশে অপরাধীরা পার পেয়ে যায় এবং অপরাধীরা আরেকটি অপরাধ করতে সক্ষম হয়৷ এছাড়া চুরি ডাকাতি লেগেই আছে হরহামেশা।

চলতি মাসের ১০ দিনে কৃষ্ণাঙ্গ ডাকাতের গুলিতে খুন হয়েছে দুইজন বাংলাদেশি নাগরিক। ২ অক্টোবর জোহানসবার্গের ট্যাম্বিসাতে গভীর রাতে কৃষ্ণাঙ্গ ডাকাতের গুলিতে খুন হয় কুমিল্লার তিতাস উপজেলার গনি মিয়া।

এছাড়া ৯ অক্টোবর ইস্টার্ন কেপ প্রদেশের স্ট্যাকস্পিরিট এলাকায় গভীর রাতে ডাকাতের গুলিতে খুন হয় কুষ্টিয়ার বাদশা মিয়া নামের অপর বাংলাদেশি নাগরিক। দক্ষিণ আফ্রিকায় এভাবে প্রতিনিয়ত চুরি ডাকাতি খুন ও অপহরণের শিকার হয়ে আসছে বাংলাদেশিরা।

বাংলাদেশিদের মধ্যে কোনো প্রকার সমন্বয় না থাকার কারণে এবং কমিউনিটি সংগঠনগুলো যে যার পদবি ব্যবহার করে নিজেদের ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত থাকায় সাধারণ প্রবাসীরা অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকায়।

প্রবাসখবর.কম/এস 
 

প্রবাস খবর
এই বিভাগের আরো খবর