মঙ্গলবার   ২০ অক্টোবর ২০২০   কার্তিক ৫ ১৪২৭   ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

প্রবাস খবর
সর্বশেষ:
আপনি কি আপনার প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে লিখতে চান? লেখা [email protected] এ পাঠাতে পারেন।
৮৪

ছুটিতে এসে আটকে পড়া ইতালি প্রবাসীরা আন্দোলনে নামছেন

প্রকাশিত: ১১ অক্টোবর ২০২০  

তিন দফা দাবি নিয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছেন ইতালি প্রবাসীরা।

তিন দফা দাবি নিয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছেন ইতালি প্রবাসীরা।

করোনাভাইরাসের কারনেবাংলাদেশিদের ইতালি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সেইসাথে দেশে ছুটিতে এসে ৮-১০ মাস ধরে আটকে পড়ায়  ইতালি প্রবাসীরা কর্মস্থলে ফিরতে পারছেন না। এছাড়া অনেকের ভিসার মেয়াদও শেষ হয়েছে ইতিমধ্যে।

এদিকে ভিসার মেয়াদ বাড়ানো নিয়েও কোনও ঘোষণা দেয়নি দেশটি। এমন পরিস্থিতিতে হতাশাগ্রস্ত ইতালি প্রবাসীরা তিন দফা দাবি নিয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছেন। রবিবার (১১ অক্টোবর) ঢাকায় ইতালির দূতাবাসের সামনে মানববন্ধনের মধ্যদিয়ে আন্দোলন শুরু হবে তাদের।

জানা যায়, কর্মস্থলে ফিরে যেতে না পেরে হতাশায় ভুগছেন ছুটিতে এসে আটকে পড়া ইতালি প্রবাসীরা। আয়হীন সময় কাটিয়ে অনেকেই ঋণগ্রস্ত হয়েছেন।

ইতালি প্রবাসীরা গণমাধ্যমে জানিয়েছেন, কোনও ব্যক্তি  ইতালির নাগরিকত্ব পেলে পরিবারের জন্য তিনি ফ্যামিলি ভিসা পাবেন। অনেকের ফ্যামিলি ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে। এখন ভিসার মেয়াদ না বাড়ালে তাদের ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হবে। অথচ সেখানে (ইতালিতে) তাদের পরিবারের সবকিছু পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে। 

জানা গেছে, ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করার তথ্য প্রকাশ করে আইইডিসিআর। সংস্থাটি জানায়, আক্রান্তদের মধ্যে দুই জন ইতালি ফেরত। তাদের একজন নারী, যিনি ইতালি ফেরত একজনের পরিবারের সদস্য। দেশে ফিরে কোয়ারেন্টিন না মানার প্রবণতা ছিল প্রবাসীদের, এর মধ্যে ইতালি প্রবাসীরাও ছিলেন। অন্যদিকে যারা ইতালিতে ফিরে গেছেন, তাদের অনেকেই সেদেশের স্বাস্থ্যবিধি ও কোয়ারেন্টিন মানেননি বলেও দেশটির সংবাদপত্রে খবরে প্রকাশ হয়।

করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে মার্চে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ রাখে। তবে সে সময়ে ইতালিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সহায়তায় বেশকিছু চার্টার্ড ফ্লাইটে দেশে ফেরেন ইতালি প্রবাসীরা। অন্যদিকে বাংলাদেশ থেকেও চার্টার্ড ফ্লাইটে ইতালিতে ফেরেন অনেকেই। পরবর্তীতে স্বাস্থ্যবিধি ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) নীতিমালা অনুসরণ করে  ১৬ জুন থেকে  সীমিত পরিসরে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শুরু হয়। 

বাংলাদেশ থেকে কাতার এয়ারওয়েজ কাতার হয়ে বিভিন্ন দেশে যাত্রীদের নিয়ে যায়। এরমধ্যে অন্যতম গন্তব্য ছিল ইতালি। ৬ জুলাই বাংলাদেশ থেকে রোমে যাওয়া একটি ফ্লাইটের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক যাত্রীর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। এরপর বাংলাদেশের সঙ্গে সব ধরনের ফ্লাইট বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে ইতালি। এ ঘোষণার পরও ৮ জুন বাংলাদেশ থেকে কাতার হয়ে ইতালিতে যাওয়া দুটি ফ্লাইটের ১৬৮ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে দিয়েছে  দেশটি।

প্রবাসখবর.কম/এস 

প্রবাস খবর
এই বিভাগের আরো খবর