বুধবার   ০৩ মার্চ ২০২১   ফাল্গুন ১৯ ১৪২৭   ১৯ রজব ১৪৪২

প্রবাস খবর
সর্বশেষ:
আপনি কি আপনার প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে লিখতে চান? লেখা [email protected] এ পাঠাতে পারেন।
১০৭

আরব আমিরাতেও ওড়ার অনুমতি পেল বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স

প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

প্রায় ২ বছর বন্ধ থাকার পর বোয়িংয়ের সেভেন থ্রি সেভেন ম্যাক্স মডেলের যাত্রীবাহী বিমানের আকাশে উড্ডয়নের অনুমতি মিলেছে।
জানা যায়, উড্ডয়নে সাময়িক নিষিদ্ধ করা যুক্তরাষ্ট্রই প্রথমে বোয়িংয়ের এই মডেলের বিমান আকাশে উড্ডয়নের অনুমতি দেয়। এরপর অনুমতি মেলে ইউরোপ আর ব্রাজিলের কাছ থেকে। এবার ৭৩৭ ম্যাক্স চলাচলের অনুমতি পেলো সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছ থেকে। 
এদিকে স্থানীয় এয়ারলাইন্সগুলোকে অবশ্যই এই বিমানের নিরাপদে চলাচল নিশ্চিত করতে হবে। এক বিবৃতিতে সংযুক্ত আর আমিরাতের জেনারেল সিভিল অথোরিটি জানায়, ইউরোপ আর যুক্তরাষ্ট্র যে নিয়মনীতি এ মডেলের বিমানের জন্য নির্ধারণ করে দিয়েছে, ৭৩৭ ম্যাক্স পরিচালনার সময় সেগুলো কঠোরভাবে বিচার বিবেচনা করা হবে। 
তবে দেশের বাইরের বৈমানিকদের ক্ষেত্রে এ বিমান উড্ডয়নের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোতে বোয়িংয়ের প্রধান কার্যালয়ের নীতি নির্ধারকদের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। সেই সাথে বৈমানিকদের প্রশিক্ষণের সনদও দেখাতে হবে। 
এ বিষয়ে আরও জানা যায়, সংযুক্ত আরব আমিরাতে বোয়িংয়ের বিমান চলাচল ব্যবসায়িক কারণে গুরুত্বপূর্ণ, কেননা এটি দুবাই আর আবুধাবির বিমানবন্দরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হাব হিসেবে কাজ করে। এখানে রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্লাই দুবাই চলাচল করে। 
ফ্লাই দুবাই এয়ারলাইন্স অভ্যন্তরীণ রুটের জন্য সেভেন থ্রি সেভেন ম্যাক্সের ২৫১ টি বিমানের অর্ডার দিয়েছে। বিমানগুলো দিয়ে এমিরেটসের সাথে যৌথভাবে দূর পাল্লার ফ্লাইট পরিচালনা করা সম্ভব।
৭৩৭ ম্যাক্সের দুটি বিমান দুর্ঘটনায় ৩৪৬ জনের প্রাণহানির পর ২০১৯ সালের মার্চে সারাবিশ্বে বন্ধ হয়ে যায় ৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের বিমান চলাচল। এখনো সংযুক্ত আরব আমিরাতে অলস পড়ে আছে ৭৩৭ ম্যাক্সের ১৪টি বিমান। 
যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ, ব্রিটেন, কানাডা আর ব্রাজিলে এরইমধ্যে স্বল্প পরিসরে শুরু হয়েছে বোয়িং সেভেন থ্রি সেভেন ম্যাক্সের বিমান চলাচল। ইউরোপীয় ইউনিয়ন এভিয়েশন সেফটি এজেন্সিও গেল মাসেই ম্যাক্সের এই বিমান ইউরোপের আকাশে ওড়ার অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত চীন বৃহত্তম এয়ার ট্রাভেল মার্কেট, যে দেশ এখনো সেভেন থ্রি সেভেন ম্যাক্সকে পুনরায় উড্ডয়নের অনুমতি দেয়নি।  
এছাড়া জানুয়ারি মাসে বোয়িং ২৬ টি বিমান সরবরাহ করেছে, এরমধ্যে ২১টি সেভেন থ্রি সেভেন ম্যাক্স। ২০ মাস ৭৩৭ ম্যাক্সের বিমান চলাচল বন্ধ ছিল। এসময় বিমান তৈরি হয়েছে ৪শ’। গেল বছরের নভেম্বর থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত ৩ হাজার ৪০৬ টি যাত্রীবাহী ফ্লাইট পরিচালনা করেছে বোয়িং সেভেন থ্রি সেভেন ম্যাক্স।

প্রবাসখবর.কম/বি

প্রবাস খবর
এই বিভাগের আরো খবর